Loading...
You are here:  Home  >  এক্সক্লুসিভ  >  Current Article

ই-ভিসা জটিলতায় বাতিল হজ ফ্লাইট, সমাধান করবে কে?

61_08_11_48_22-1442924504-haj-pilgrims
ডিজিটাল ভোগান্তি পিছু ছাড়ছে না বাংলাদেশি হজযাত্রীদের। চলতি বছর থেকে সৌদি আরব কর্তৃক প্রবর্তিত ই-ভিসা নিয়ে অনাকাঙ্খিত জটিলতা ও ভোগান্তি দিন দিন বেড়েই চলছে।

বাংলাদেশের হজযাত্রীরা প্রতিদিনই শিকার হচ্ছেন চরম বিড়ম্বনার। বিড়ম্বনার নতুন নাম ফ্লাইট বাতিল। একে এক বাতিল হচ্ছে হজ ফ্লাইট। সোমবারও (৩১ জুলাই) পবিত্র হজ গমনেচ্ছু যাত্রীদের তিনটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।

সোমবার (৩১ জুলাই) ১০টা ২৫ মিনিটের এবং মঙ্গলবার (০১ আগস্ট) ভোর ৪টা ৫৫, সকাল ৮টা ৫৫ ও রাত ১১টা ৪৫ মিনিটের হজ ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান কর্তৃপক্ষ।

গত ২৪ জুলাই থেকে এ বছরের হজ ফ্লাইট শুরু হয়েছে। এর পর থেকে নানা জটিলতা শুরু হয়েছে। এ জটিলতায় এ নিয়ে মোট ৭টি হজ ফ্লাইট বাতিল করা হলো।

ফলে ই-ভিসা জটিলতায় হজ ফ্লাইট বাতিল ও কম যাত্রী নিয়েই হজ ফ্লাইটই ঢাকা ছাড়ছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্ধারিত সময়ে ই-ভিসা না হওয়ার কারণে ভবিষ্যতে এয়ারলাইন্সগুলোর ক্যাপাসিটি লস আরও বাড়তে পারে।

সৌদি ই-হজের সার্ভার জটিলতাসহ নানা কারণে নির্ধারিত সময়ে ই-ভিসা পাচ্ছেন না অনেক হজযাত্রী। এ কারণে নির্ধারিত ফ্লাইটে সৌদি আরব যেতে পারছেন না তারা। পরিবার থেকে বিদায় নিয়ে ফ্লাইটে ওঠার শেষ মুহূর্তেও ভিসা না পাওয়ায় বিমানবন্দর থেকে ফেরত যেতে হচ্ছে অনেককে।

জানা গেছে, আগে পাসপোর্টে ভিসার স্টিকার লাগানো হতো। যা ঢাকাস্থ সৌদি দূতাবাস ইস্যু করতো। কিন্ত এবার ভিসা অনলাইনে করা হয়েছে। পাসপোর্টে কোনো ভিসা থাকছে না।

হজে যাওয়ার সময় পাসপোর্টের সঙ্গে আলাদা কাগজে ই-ভিসার প্রিন্ট করা কপি সঙ্গে রাখার বাধ্যবাধকতা করা হয়েছে। সাদা কাগজে প্রিন্ট করা এই ই-ভিসা দেখে অনলাইনে চেক করে বিমান বন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ পাস দিচ্ছে। অনলাইনেই হচ্ছে সবকিছু।

তবে সার্ভারের সিস্টেম জটিলতা দেখা দিচ্ছে ক্রমাগত। অনলাইনে ই-ভিসার প্রিন্ট নেওয়ার সমস্যা হচ্ছে। সমস্যাগুলোর অন্যতম হলো- যেসব হজযাত্রীদের নামের অংশ একটি তাদের ভিসা হচ্ছে না, ছবির সাইজের কমবেশির জন্য অনেকের ভিসা আটকে যাচ্ছে, সেই সঙ্গে সার্ভার জটিলতাও দেখা দিচ্ছে। তার পরও সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর প্রিণ্ট করতে গিয়ে অনেকের ভিসা প্রিন্ট হচ্ছে না। পরে দৌঁড়াতে হচ্ছে সৌদি দূতাবাসে। সেখানেও দ্রুত সমস্যা মিটছে না।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, উদ্ভুত সমস্যার সমাধান সৌদির হাতে। এখানে হাব, ধর্ম মন্ত্রণালয় কিংবা হজ এজেন্সির মালিকদের কিছু করার নেই।

হজ অফিস ও এজেন্সি সংশ্লিষ্টরা জানান, ২৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত কয়েক শ’ হজযাত্রীর ই-ভিসা যথাসময়ে প্রিন্ট হয়নি। বেশিরভাগ এজেন্সিরই দুই-একজন হজযাত্রীর ভিসা আসছে না।

সৌদির ই-হজ সিস্টেমের সার্ভারে সমস্যার কারণেই এ জটিলতা হচ্ছে বলে হজ অফিস-সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। ফেরত আসা ভিসার আবেদনগুলো আবার পাঠানো হলেও তা কবে পাওয়া যাবে, সে বিষয়েও নিশ্চয়তা দিতে পারছে না কেউ। এতে অনিশ্চয়তার মধ্যেই হজযাত্রীরা হজক্যাম্পে দিন কাটাচ্ছেন।

ভিসা জটিলতার কারণে নির্ধারিত সময়ে সৌদি যেতে না পারায় বাংলাদেশ বিমান ও সৌদিয়ার ফ্লাইট বিপর্যয় শুরু হয়েছে। তাছাড়া আবেদন সৌদি দূতাবাসে পাঠানোর পর ভিসা নিয়ে সময়ক্ষেপণ করা হচ্ছে। আর পাসপোর্টের সঙ্গে ই-ভিসার প্রিন্ট করা কপি না থাকলে এয়ারলাইনস অফিসাররা ফেরত পাঠাচ্ছে।

এ সমস্যা আরও প্রকট হতে পারে। এখনই কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে শেষ সময়ে নির্ধারিত ফ্লাইটের বাইরে ট্রানজিট বিমানে করে হজযাত্রী সৌদি পাঠানোর উদ্যোগ নিতে হবে। এটা আরও কষ্টকর।

গত তিন-চারদিনেও এ ধরনের সমস্যার সমাধান না হওয়ায় সংশ্লিষ্টদের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। সমস্যার দ্রুত সমাধান না হলে অনেকেই নির্দিষ্ট সময়ে সৌদি আরবে যেতে পারবেন না।

যদিও ধর্ম মন্ত্রণালয় বলছে, উদ্ভূত সমস্যা সহসাই কেটে যাবে মন্ত্রণালয়ের এমন আশ্বাসেও উদ্বেগ কাটছে না ভুক্তভোগী হজযাত্রীদের।

এ বিষয়ে হজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, এবারই প্রথম হজযাত্রীদের জন্য ই-ভিসা চালু করা হয়েছে। অনলাইনে সমস্যা হচ্ছে, সিস্টেমের সমস্যা। এবারই প্রথম সিস্টেমটা চালু হয়েছে, এটা সারাবিশ্বে হচ্ছে, শুধু বাংলাদেশে না। এখানে কারও কিছু করার নেই। তবে আমরা সিস্টেম ডেভেলপমেন্টের জন্য হাবের পক্ষ থেকে সৌদি দূতাবাসসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে জানিয়েছি। আশা করছি, দ্রুত সমস্যা কেটে যাবে।

পবিত্র হজ নিয়ে এবার শুরু থেকেই জটিলতার কথা গণমাধ্যমে বারবার এসেছে। প্রাক-নিবন্ধন দিয়ে এ জটিলতার শুরু। ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রাক-নিবন্ধন করতে গিয়ে অনেকেই আগে টাকা জমা দিয়েও সিরিয়ালে অনেক পেছনে পড়ে যান। এ কারণে তারা মূল নিবন্ধন করতে না পারায় এ বছর হজে যেতে পারছেন না।

এ বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মোট হজযাত্রীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। হজযাত্রীদের সৌদি আরবে যাত্রার প্রথম ফ্লাইট পৌঁছে ২৪ জুলাই। শেষ ফ্লাইট ২৮ আগস্ট।

ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে ৬ সেপ্টেম্বর ও শেষ ফিরতি ফ্লাইট ৫ অক্টোবর।

এ বছর চাঁদ দেখা সাপেক্ষে হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে ১ সেপ্টেম্বর। পবিত্র হজব্রত পালনের উদ্দেশে বাংলাদেশে থেকে রোববার পর্যন্ত সৌদি আরবে পৌঁছেছেন মোট ২১ হাজার ১১০ জন হজযাত্রী। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় গেছেন ২ হাজার ৮৭৬ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৮ হাজার ২৩৪ জন।

    Print       Email

You might also like...

6afed405318d4219e5ce1f58be1a4401-5a1580a4a4885

২৭ নভেম্বর লন্ডনে কারি শিল্পের ‘অস্কার’

Read More →