Loading...
You are here:  Home  >  কলাম  >  Current Article

কাতালোনিয়া ছাড়ার কি সময় হয়েছে?

_98223254_96dbe155-5c3f-48fc-85d4-f50f178f8bdb
কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্নতার পক্ষে থাকা একটি উগ্রপন্থী দল গতবছর প্রস্তাব দিয়েছিল বার্সেলোনার বিখ্যাত ক্রিস্টোফার কলম্বাস মনুমেন্টটি গুড়িয়ে দেয়ার।
অল্প কিছু সিটি কাউন্সিলরই এই প্রস্তাবে সমর্থন দিয়েছিলেন যারা এই স্থাপত্যটিকে দাসত্বের একটি প্রতীক হিসেবে দেখেন। যদিও ২০০ ফুট উঁচু সেই কলাম এখনো বেশ ভালভাবেই দাঁড়িয়ে আছে- ব্রোঞ্জের তৈরি কলম্বাসের হাত নির্দেশ করছে সমুদ্রের দিকে।
তবে কিছু কাতালান স্প্যানিয়ার্ড এই স্থাপত্যটি সরিয়ে দেয়ার চিন্তাকে দেখেন তাদের স্প্যানিশ পরিচয় মুছে দেয়ার চেষ্টা হিসেবে। গত রোববারের স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোটকেও তারা একইভাবে দেখেন।

“এটিই শেষ আঘাত” গণভোট শেষ হবার পর বিবিসিতে কাতালোনিয়ার প্রেসিডেন্ট কার্লেস পুজদেমনের সাক্ষাতকার দেখতে দেখতে বলছিলেন হুয়ান, একজন স্প্যানিয়ার্ড কাতালান। “যদি সত্যিই এমনটা হয় তাহলে আমাকে কাতালোনিয়া ছাড়তে হবে”।

নিজের জন্মভূমি ছেড়ে দেয়ার চিন্তা তার জন্য কষ্টকর। তার মত প্রায় ৪০ শতাংশ কাতালান ২০১৫ সালে একসাথে থাকার পক্ষের দলগুলোকে ভোট দিয়েছিল- অশান্ত এই অঞ্চলটিতে স্প্যানিশ সরকারকে সমর্থনের জন্য এই দলগুলোর দিকেই তাকিয়ে থাকতে হয়।

তার মত অনেক তরুণেরাই জোর গলায় কিছু বলার সাহস সঞ্চয় করতে পারেন না, বিদেশের মাটিতে সংখ্যালঘু হয়ে গেলে ক্যারিয়ারে একটি ধাক্কা খাওয়ার ভয় আছে তাদের। তবে কিছু মানুষ পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে বিবিসি সংবাদদাতা প্যাট্রিক জ্যাকসনের সাথে কথা বলতে রাজী হলেন।
এখানকার স্প্যানিয়ার্ডদের অনেকেই স্পেনের দরিদ্র দক্ষিণাঞ্চল থেকে এসে কয়েক প্রজন্ম ধরে কাতালোনিয়া অঞ্চলে বসবাস করছেন। যুক্তরাষ্ট্র যেভাবে মেক্সিকানদের সন্দেহের চোখে দেখে, এই স্প্যানিয়ার্ডদেরও এখানে অনেকটা সেভাবেই দেখা হয়। দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকে পরিণত হওয়ার ভয়ে তারা ভীত।
তাদেরই একজন সার্জিও মনে করেন স্বাধীনতা আন্দোলনের পূর্ণাঙ্গ লক্ষ্য এবং তার প্রভাব নিয়ে যথেষ্ট চিন্তাভাবনা করা হয়নি।

“আমাদের দাদা-নানাদের পেনসনের কী হবে?” তিনি প্রশ্ন করেন।
“তারা কি আশা করছে স্পেন সেই পেনসন দেবে? যেভাবে ডোনাল্ড ট্রাম্প চায় যে তার সীমান্তের দেয়ালের খরচটা মেক্সিকো দিক। স্বাধীনতার পরদিন কী হবে? আমাদের মুদ্রা কী থাকবে? আমরা কি ইউরোপে থাকব?”
এরইমধ্যে স্পেনের পঞ্চম বৃহত্তম ব্যাংক সাবাডেল জানিয়েছে তারা তাদের আইনি নিবন্ধন কাতালোনিয়া থেকে সরিয়ে নিচ্ছে। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও একই পথ অনুসরণ করতে পারে।
“আমি চিন্তিত কারণ অনেক প্রতিষ্ঠানই আমাদের ছেড়ে যাচ্ছে” বলেন ডেভিড।
“স্বাধীনতা আন্দোলনকারীরা যখন বলে যে তোমরা চলে যাও, তোমরা না থাকলে আমরা আরো বেশি চাকরি পাব- তখন আমি তাদের কাছ থেকে শুধু দায়িত্বজ্ঞানহীনতাই দেখি”।
“এই প্রক্রিয়ার পর যারা পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে তাদের কথা না ভেবেই সবকিছু বলা হচ্ছে। মনে হচ্ছে তারা শুধু নিজেদের জন্যই সবকিছু বেশি করে চাচ্ছে, অন্যদের কথা তারা ভাবছেই না”।
তারা কি স্প্যানিশ নাকি কাতালান?

স্বাধীনতা বিরোধী একটি বিক্ষোভে একজনের হাতে পতাকায় লেখা আমি স্প্যানিশ এবং কাতালান।
“আমার নিজেকে কাতালান এবং স্প্যানিশ মনে করি এবং আমি স্বাধীনতার সমর্থনকারীদের আমার সংস্কৃতি কেড়ে নিতে দেবো না” বলেন ডেভিড।
“আমি নিজে যা হয়েছি এজন্য আমি পুরো স্পেনকে ধন্যবাদ জানই, শুধু কাতালোনিয়া নয়। কাতালোনিয়া আমার বাড়ি, কিন্তু আমার ব্যক্তিত্বে রয়েছে পুরো স্পেন”।
সার্জিওর ভয় স্প্যানিয়ার্ডদের একটি ভবিষ্যৎ রাষ্ট্র থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে।
“কাতালান সরকার শুধুমাত্র জাতীয়তাবাদীদের সুরেই কথা বলে, তারা একটি কাতালান দেশের কথা বলে” তিনি বলেন।
“পুজদেমন প্রথমেই বলেছেন কাতালান মানুষেরা যেকোন সময়ের চেয়ে সবচেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ, মোটেও সত্য কথা নয়! কাতালানরা এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি বিভক্ত। কিন্তু তিনি যে একটি অংশের জন্য কথা বলেন তারা অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ”।
“তবে সতর্ক থাকুন, কারণ আমরাও ঐক্যবদ্ধ” বলেন সার্জিও।

    Print       Email

You might also like...

রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ ধেয়ে আসছে

Read More →