Loading...
You are here:  Home  >  সিলেট সংবাদ  >  Current Article

কিশোরীকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় মা ও বাবার দুটি মামলা

হবিগঞ্জের লাখাইর আলোচিত ফাহিমা হত্যার ঘটনায় মা ও বাবা বাদী হয়ে দুইটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গুনিপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর কন্যা ফাহিমা আক্তারকে (১৭) গত ২ জুন দিনদুপুরে নিজ গৃহে গলা কেটে হত্যা করা হয়। খুনের সংবাদ পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে এবং হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার সন্দেহে একই গ্রামের ইছাক মিয়ার পুত্র জাহেদ মিয়াকে (২২) গ্রেফতার করে। পরদিন ৩ জুন নিহতের মা কুলসুমা বেগম বাদী হয়ে লাখাই থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে মামলা দায়ের করে। যার নং-০৪ তারিখ ০৩/০৬/২০১৮ইং, জি.আর মামলা নং-১০০/১৮ইং (লা:)। এদিকে ধৃত জাহেদ মিয়াকে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।
পরবর্তীতে নিহত ফাহিমার বাবা মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে গত ৬ জুন ৯ জনকে আসামী করে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (কগ)-৭ আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন। বাদী মোহাম্মদ আলী মামলার বিবরণে উল্লেখ করেন তার স্ত্রীর করা মামলায় তাদের মতামতের প্রতিফলন ঘটেনি এবং কোন আসামীর নাম উল্লেখ করা হয়নি। এ মামলাটি থানা পুলিশের মনগড়া। তাই তিনি পুনরায় আদালতে এ মামলা দায়ের করেছেন। বাদী মোহাম্মদ আলী আরো উল্লেখ করেন থানা কর্তৃপক্ষ তাদের মামলা না নিলে তারা আদালতে মামলা দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অজয় চন্দ্র দেব এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ফাহিমা হত্যার ঘটনায় মা কুলসুমা বেগম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন এবং আমরা জাহেদ মিয়া নামে একজনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছি। মামলায় অজ্ঞাত আসামী থাকায় তাদের আর কোন তদন্ত চলছে কি না জানতে চাইলে তিনি জানান ধৃত জাহেদ মিয়া প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে সে একাই হত্যা করেছে। তাই এ মামলার আর কোন অগ্রগতি নেই। নিহতের বাবা বাদী হয়ে অপর ১টি মামলায় ৯ জনকে আসামী করে আদালতে দায়ের করা হয়েছে মর্মে জানতে চাইলে তিনি বলেন এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।

    Print       Email

You might also like...

122647_b7

সিলেটে পুলিশ ছাত্রদল সংঘর্ষ, গুলি, আহত ১৫, আটক ২০

Read More →