Loading...
You are here:  Home  >  ইউকে  >  Current Article

গুপ্তচর হতে টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন!

image-53343-1527399352

৩৬ সেকেন্ডের একটি বিজ্ঞাপন। শুরুটা দেখে মনে হবে যেন জেমস বন্ড সিনেমার কোনো উত্তেজনাকর দৃশ্যের অবতারণা হতে যাচ্ছে।বিশাল আকৃতির হাঙর সাঁতরে বেড়াচ্ছে নীল রঙের পানিতে। রহস্যময় আবহসংগীত শোনা যাচ্ছে।কিন্তু তার পর দেখা গেল এক নারী তার শিশুকে নিয়ে গেছেন লন্ডনের একটি অ্যাকুরিয়ামে। বিজ্ঞাপনে এটিই বলার চেষ্টা করা হয় যে, ‘গুপ্তচর মানেই হাঙরের সামনে বাহাদুরি দেখানো নয়। আমরা গুপ্তচর, কিন্তু আমরা আপনাদের মতোই সাধারণ মানুষ।’

১১০ বছরের ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো গোয়েন্দা নিয়োগে টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন দিয়েছে ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআইসিক্স। সংস্থাটির প্রধান অ্যালেক্স ইয়ঙ্গার বলছেন, ‘আমরা এমন মানুষজনকে গোয়েন্দা হিসেবে চাই, যারা জীবনে কখনও এমন পেশায় যাওয়ার কথা চিন্তাও করেননি।’

সিনেমায় যেভাবে দেখানো হয়, যেমন জেমস বন্ডের কথাই ধরুন। ঠাণ্ডা মেজাজের এক সুপুরুষ, দারুণ পোশাকে বিশ্বের সবচাইতে আধুনিক সব যন্ত্রপাতি আর অস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি হচ্ছেন ভিলেনের। গোপনে তার কার্যক্রম রক্ষা করল পৃথিবীকে বা তার কারণে বদলে গেল পৃথিবীর গতি ইত্যাদি। সিনেমার কারণে গোয়েন্দা শব্দটির সাথে যে রোমাঞ্চকর অনুভূতি জড়িয়ে রয়েছে, সে জন্য হয়তো বহু মানুষ এই পেশায় যোগ দিতে চান।

কর্মকর্তারা বলছেন, সম্প্রতি ব্রিটেনের একটি নিরিবিলি শহরে রাশিয়ান একজন সাবেক গুপ্তচর ও তার মেয়েকে নার্ভ গ্যাস দিয়ে হত্যাচেষ্টার খবর সংবাদমাধ্যমে প্রকাশের পর থেকে সেখানে এমআইসিক্সে চাকরিতে আবেদনের পরিমাণ ব্যাপক বেড়ে গেছে। তবে তারা বলছেন, জেমস বন্ড হয়ে উঠতে চাইলে হবে না। তারা একজন সফল গুপ্তচরের খোঁজ আরও বিস্তৃত করবেন।

সিনেমায় যা দেখা যায় বাস্তব তার ভিন্ন। গুপ্তচরেরা সমাজেরই মানুষ। বিশেষ করে নারী ও সংখ্যালঘুদের আকৃষ্ট করতে চাইছে এমআইসিক্স। কারণ সর্বশেষ ২০১৬ সালের তথ্যমতে সংস্থাটিতে কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয়ান বংশোদ্ভূত মানুষজন এবং নারীদের সংখ্যা খুব কম। পেশার কথা যখন ওঠে তখন এর বেতনভাতা একটা বড় বিষয়।

ব্রিটেনে একজন ইন্টেলিজেন্স অফিসারের বেতন শুরুর দিকে বছরে ৩৫-৩৭ হাজার পাউন্ড। তবে তাকে নিয়োগের আগে ব্যাপক পরিমাণে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। কেননা রাষ্ট্রের নিরাপত্তার গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য নিয়ে তাকে কাজ করতে হবে। অথবা এমন অনেক তথ্য থাকবে তার হাতের নাগালে।

আগে ব্রিটেনে গোয়েন্দা হতে হলে প্রার্থী খাঁটি ব্রিটিশ কিনা এমন প্রমাণ করতে হতো। আবেদনকারীর বাবা-মায়ের সেখানে জন্ম বাধ্যতামূলক ছিল। তবে এ ধারায় পরিবর্তন আসছে। অ্যালেক্স ইয়ঙ্গার বলছেন, সংস্থায় কর্মীদের মধ্যে বৈচিত্র্য আনতে জাতীয়তাবিষয়ক ধারা শিথিল করা হচ্ছে। বিবিসি বাংলা।

    Print       Email

You might also like...

4C389A6E-C4D7-4F69-BBAD-5D3FA9F21BED

ইংল্যান্ডের বাজিমাত

Read More →