Loading...
You are here:  Home  >  এক্সক্লুসিভ  >  Current Article

জেদ্দা হিজাজী উৎসব: নান্দনিক প্রাচীন ঐতিহ্যের স্মারক

Hijaziসৌদি আরবের পবিত্র মক্কা, মদীনা নগরীসহ রাজধানী জেদ্দাজুড়ে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং সভ্যতা-আশ্রয়ী বিশেষ উৎসব ‘হিজাজী মেলা উৎসব।’ এভাবে শিক্ষার্থীদের স্কুলবর্ষের মধ্যবর্তী সময়ে প্রতিটি বড় শহ্েরই উৎসব উদ্বোধনের মাধ্যমে নিজেদের গৌরবময় সোনালী অতীত, পূর্ব প্রজন্ম এবং ইতিহাস সম্পর্কে দেশটির তরুণসমাজের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টিই এর মূল লক্ষ্য।
উৎসবে সৌদি আরবের নানা ঐতিহ্যবাহী বিষয়-অনুষঙ্গ, নগরবাসীর জীবনাচার নিয়ে নানান বর্ণাঢ্য প্রতিযোগিতা ও অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়। এসব অনুষ্ঠানের মধ্যে তরুণদের নেচে-গেয়ে র‌্যালি, গান-গজলসহ নানা সাংস্কৃতিক পরিবেশনা ছিল উৎসবে নজর কাড়ার মত।
সম্প্রতি জেদ্দার ঐতিহাসিক এলাকায় অনুষ্ঠিত তৃতীয় উৎসবের বিশেষ শ্লোগান ছিল ‘যা ছিল আমাদের অতীত’। তাতে তাদের বিভিন্ন ঐতিহাসিক প্রতিষ্ঠান ও পণ্যের বৈচিত্র্যপূর্ণ, আকর্ষণীয় ও স্বতন্ত্র ডিজাইন প্রদর্শন ও উপস্থাপন করে।
ঐতিহাসিক সেসব প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ ইতোমধ্যেই জাদুঘরে রূপান্তরিত হয়েছে। যেমন ‘বায়তুস সালুম’, এটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৮৩ সালে। এর সার্বিক অঙ্গসজ্জা করা হয় ইসলামী নান্দনিক স্থাপত্য্য শৈলীর মূর্ত প্রতিলন যেমন আছে পাশাপাশি হিজাজী ঐতিহ্যেরও আছে সুসামঞ্জস্য সাজুয্য ও উৎকৃষ্টতর সমন্বয়।
বায়তুস সালুম’এর প্রধান তোরণের নকশা করা হয়েছে চমৎকার কারুকার্যময় কাঠের আলংকরিক শিল্প-সুষমা দিয়ে।
জেদ্দা উৎসবে বেশক’টি র্কুার বা স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে পবিত্র মক্কা এবং মদীনার জন্য। মক্কা এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়েছে মক্কা র্কুারসমূহে।
মক্কা নগরীর মেয়র ওসাম আল-বার বলেন, মিউনিসিপ্যাল কর্তৃপক্ষ এই ঐতিহ্যবাহী উৎসব অব্যাহত রেখে অধিবাসী এবং বহির্বিশ্বের দর্শনার্থীদের কাছে এ মহানগরীর ধর্মীয় গাম্ভীর্য, গুরুত্ব ও এর ঐতিহ্যগত স্বাতন্ত্র্য এবং বিখ্যাত হিজাজী সংস্কৃতির বিগত শতাব্দীসমূহের স্বর্ণোজ্জ্বল ইতিহাস তুলে ধরতে চায়।
মদীনা ফিমেল লিটারারি এন্ড ইন্টেলেকচুয়াল গ্যালারির প্রধান জামাল আল-সাদী বলেন, ‘‘এই ঐতিহ্য উৎসব বেশ গতিময় এবং সক্রিয়। এর স্পেশাল র্কুারগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে এখানকার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে নান্দনিক উপায়ে উপস্থানের জন্যে। এসব প্রাচীন স্থাপনা যুগ যুগ ধরে হিজাযী জনগোষ্ঠীর দীর্ঘ লালিত আচর-অভ্যেস, হিরোন্ময় অতীতকে বহন করে আসছে কাল থেকে কালান্তরে।
উৎসবে হেজাজ অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করছে হিজাজী স্টল বিশেষ হিজাজী হাউজগুলো, এগুলো হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী কাঠের তৈরি আবাসগৃহের মিনিয়েচার বা মডেল। সেখানকার অধিবাসীদের রীতি-নীতি, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ফুটিয়ে তুলতে নানারকম বাহারী সেরা শিল্পকর্ম নিয়ে সাজানো হয়েছে তাদের ক্ষুদে বিপণী কেন্দ্র।
হিজাজী হাউজের বিশেষ আকর্ষণ হচ্ছে তাদের চমৎকার নানা হস্তশিল্প পণ্য, আছে কাঠের অলংকার, নানা তৈজষপত্র এবং কারুকার্য খচিত কাঠের দরজা-জানালার প্রদর্শনী। এছাড়াও অনেক প্রাচীন ইসলামী রীতির আলোকে স্বতন্ত্র রঙ ও ডিজাইনের দুর্লভ শিলালিপির সমাহার। এগুলোর অধিকাংশই ভারতীয় অঞ্চল থেকে আমদানিকৃত। এসব পুরাতন দরজা-জানালা অত্যন্ত সুন্দর মনোহর শিল্পমানে নির্মিত। প্রাচীন নন্দনতত্ত্ব অনুকরণে ফুল-লতাপাতা ও ইসলামী শিলালিপি কাঠ খোদাই করে এমনভাবে উৎকীর্ণ করা হয়েছে যে, উৎসবে আগত দর্শকদের দৃষ্টিকে প্রবলভাবে আটকে রাখে। এসব শিল্প পণ্যের চিত্তাকর্ষক সাজসজ্জা নয়নাভিরাম সৌন্দর্যে মুগ্ধ উৎসুক দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভীড় লক্ষ্য করা যায় হিজাজী হাউজগুলোতে। -ভাষান্তর : সোহরাব আসাদ

    Print       Email

You might also like...

3beacdcde2a669c2103e83ce980f3dd9-5a182942ec897

মিসরে মসজিদে হামলা, নিহত ২৩৫

Read More →