Loading...
You are here:  Home  >  সিলেট সংবাদ  >  Current Article

বিপদসীমার উপরে সুরমা-কুশিয়ারার পানি

img_0954-original-resolution-800x600
ভারতের মেঘালয়, আসাম, ত্রিপুরাসহ কয়েকটি রাজ্যে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় বাড়ছে সিলেটের সুরমা-কুশিয়ারায় পানি । এ দুটি নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে বিপদসীমা অতিক্রম করে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানায়, কয়েকদিন নদীর পানি কিছুটা কমতে শুরু করলেও শনিবার (১৫ জুলাই) থেকে নতুন করে সুরমা-কুশিয়ারার পানি বেড়ে গেছে। রোববার (১৬ জুলাই) সবকটি পয়েন্টে বিপদসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

পাউবো নিয়ন্ত্রণ কক্ষের তথ্যমতে, রোববার কানাইঘাটে সুরমার পানি বিপদসীমার ৬৩ সেন্টিমিটার, শেওলায় কুশিয়ারা বিপদসীমার ৯৩ সেন্টিমিটার, আমলসীদের কুশিয়ারা বিপদসীমার ১৩৩ সেন্টিমিটার এবং শেরপুরে কুশিয়ারা বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, নদীর পানি বাড়ার কারণে বন্যার পানি বাড়ছে। বিশেষ করে শনি ও রোববারে সুরমা কুশিয়ারার পানি আরো বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। উজানে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হতে পারে।

তিনি আরো বলেন, ভারতের মণিপুর রাজ্যের পাহাড় থেকে উৎপন্ন বরাক নদী আসামের কাঁছাড় হয়ে জকিগঞ্জের আমলসীদের কাছে বরাক মোহনা সুরমা ও কুশিয়ারার উৎসমুখ। শুধু বরাক নয় এই দুই নদী দিয়ে আসাম ও মেঘালয়ের অন্য ছোট কয়েকটি নদীরও পানি প্রবাহিত হয়।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সিলেটের আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ বলেন, সিলেটের আপার লেভেলে তথা আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয় রাজ্যে প্রবল বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে সুরমা-কুশিয়ারায় পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। যদিও সিলেটে বৃষ্টিপাত হচ্ছে না। শনিবার (১৫ জুলাই) তাপমাত্রা ছিলো ৩৫ দশমিক ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং রোববার (১৬ জুলাই) ৩৬ দশমিক ৪ ডিগ্রী। যা গত কয়েক মাসে সর্বাধিক। অথচ তাপমাত্রা বাড়লেও নদীর পানি কমেনি বরং বেড়েছে।

সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ড. জহির বিন আলম বলেন, গাছপালা, টিলা-পাহাড় ধ্বংস করায় প্রকৃতি আমাদের সঙ্গে বিদ্রোপ করছে। তাছাড়া উজানে বৃষ্টিপাতের ফলে নদ-নদীর পানি বাড়ছে। সঙ্গে বন্যাও দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে। এ অবস্থায় নদী খননের বিকল্প নেই। মেঘা প্রকল্প হাতে নিয়ে সুরমা-কুশিয়ারা নদী খনন করতে হবে।

ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মাসখানেক ধরে সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলার নয়টি উপজেলা বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে- সিলেটের বিয়ানীবাজার, ফেঞ্চুগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, বালাগঞ্জ ওসমানীনগর ও মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা, জুড়ি, কুলাউড়া, ও রাজনগর।

    Print       Email

You might also like...

Law-B-20170720131058

রাগীব আলী ও তার ছেলের জামিন মঞ্জুর করেননি হাইকোর্ট

Read More →