Loading...
You are here:  Home  >  ইউকে  >  Current Article

বৃটেনে আবারো জয়ের মুকুট মাথায় তিন বাংলাদেশী

Tulip-siddiq-Rupa-Haq-Rushnara-Ali
সাঈদ চৌধুরী: বৃটেনে আবারো জয়ের মুকুট মাথায় নিলেন তিন বাংলাদেশী। বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনে রুশনারা আলী, হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক এবং ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসনে রূপা হক জয়ী হয়েছেন। মধ্যবর্তী নির্বাচনে লেবার দলের প্রার্থী হিসেবে এই তিন বাঙালি কন্যা গতবারের চেয়ে অনেক বেশি ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন।
২০২০ সালে এই নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে আগাম ঘোষনা দেয়ায় মাত্র দুই বছরের মাথায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবারের নির্বাচনে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মোট ১৪ প্রার্থী ছিলেন।পূর্বের এই তিন এমপি ছাড়া নতুন কেউ বিজয়ী হননি। স্থানীয় সময় সকাল সাতটা থেকে ভোট শুরু হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। রাতভর ভোট গণনা শেষে আজ এই ফলাফল ঘোষণা হয়েছে।
নির্বাচনে ধানমন্ত্রী থেরেসা মে বার্কশায়ারের সোনিং গ্রামে একটি কেন্দ্রে ভোট দেন । আর বিরোধী লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন লন্ডনের ইসলিংটনের একটি কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেন।
ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি বৃহত্তম দল হলেও পার্লামেন্টে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট হতে পারে। এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, কনজারভেটিভ পেয়েছে ৩১৫ আসন। লেবার পার্টি পেয়েছে ২৬১ আসন। এসএনপি ৩৫ আসন। লিব ডেম পেয়েছে ১২ আসন। ২১ আসন পেয়েছে অন্যান্য দল । ৬৫০টি আসনের মধ্যে কোনো দল এককভাবে ৩২৬টি পেলেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা হবে।
এবার মোট ৬৮টি দল ও ১৯১ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ২ হাজার ৩০৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে ইংল্যান্ডে ৫৩৩, স্কটল্যান্ডে ৫৯, ওয়েলসে ৪০ এবং নর্দান আয়ারল্যান্ডে ১৮টি আসন রয়েছে।
২০১৫ সালে কনজারভেটিভ পার্টি ডেভিড ক্যামেরনের নেতৃত্বে ৩৩০টি আসন পেয়ে এককভাবে ক্ষমতায় গ্রহন করে। আর বিরোধী দল লেবার পার্টি পায় ২২৯টি আসন।
ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যুক্তরাজ্যের থাকা না-থাকা নিয়ে ২০১৬ সালের জুন মাসে গণভোট হয়। এতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ইইউতে থাকার পক্ষে ছিলেন। জনগণ বিচ্ছেদের পক্ষে রায় দিলে ক্যামেরন পরাজয় মেনে পদত্যাগ করেন। পরে থেরেসা মে প্রধানমন্ত্রী হন।
রুশনারা
পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনে ৩৫ হাজার ৫৯৩ ভোটের ব্যবধানে বড় জয় পেয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলী। এ নিয়ে তৃতীয় মেয়াদে এমপি নির্বাচিত হলেন তিনি। রুশনারা ৪২ হাজার ৯৬৯ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির চার্লট চিরিকো পেয়েছেন ৭ হাজার ৫৭৬ ভোট। ২০১০ সালে প্রথম তিনি প্রায় ১২ হাজার ভোটে এবং ২০১৫ সালে ২৪ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে দ্বিতীয় মেয়াদে এমপি নির্বাচিত হন। অক্সফোর্ড গ্রাজুয়েট রুশনারা আলীর জন্ম সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায়।
images
বঙ্গবন্ধুর নাতনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন থেকে দ্বিতীয় বারের মত জয়ী হয়েছেন। লেবার দলের প্রার্থী টিউলিপ পেয়েছেন ৩৪ হাজার ৪৬৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী ক্লেয়ার লুইচ লিল্যান্ড পেয়েছেন ১৮ হাজার ৯০৪ ভোট। ২০১৫ সালে মাত্র ১ হাজার ১৩৮ ভোটের ব্যবধানে প্রথমবার এমপি নির্বাচিত হন।
Rupa-Huq
কিংসটন ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষক রূপা লন্ডনে জন্মগ্রহণ করলেও তার আদি বাড়ি বাংলাদেশে পাবনা জেলায়। রূপা হক ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসনে লেবার দলে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৩৩ হাজার ৩৭। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী জয় মোরিসি পেয়েছেন ১৯ হাজার ২৩০ ভোট। গতবার ২৭৪ ভোটে জয়ী হলেও এবার জিতেছেন ১৩ হাজার ৮০৭ ভোটের ব্যবধানে।
MP

    Print       Email

You might also like...

_97725955_gettyimages-495745810

অং সান সু চি হচ্ছেন রোহিঙ্গা সঙ্কটের সমাধান: ড. মুহাম্মদ ইউনুস

Read More →